যানজট নেই সিরাজগঞ্জ মহাসড়কে

আর্টিকেল: পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম-হাটিকুমরুল গোলচত্বর রুটসহ সিরাজগঞ্জের চারটি মহাসড়কে যানবাহনের চাপ বেড়েছে। এতে ঢাকা-উত্তরাঞ্চলগামী লেনে যানবাহন চলাচলে ধীরগতি থাকলেও দীর্ঘস্থায়ী কোনো যানজট নেই।

এদিকে, রোজার ঈদের মতো এবারও মহাসড়ক দীর্ঘ যানজট ও দুর্ভোগমুক্ত থাকবে বলে আশা করছে পুলিশ। এরই মধ্যে মানুষের ঈদযাত্রা নিরাপদ করতে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে সড়ক-মহাসড়কে।

শনিবার (১৮ আগস্ট) সকালে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম মহাসড়কে কিছুটা যানজট দেখা দিলেও পুলিশের চেষ্টায় অল্প সময়ের মধ্যেই তা নিরসন হয়। বেলা ১২টার পর থেকে যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। হাটিকুমরুল গোলচত্বর থেকে পাবনা, রাজশাহী ও বগুড়া রুটে যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, বিগত কয়েক বছর ধরে দুর্ভোগের রুট হিসেবে খ্যাত ছিল বঙ্গবন্ধু সেতু-হাটিকুমরুল গোলচত্বরসহ বাকি তিনটি মহাসড়ক। যানজট আর দুর্ঘটনা লেগেই থাকতো এ মহাসড়কে। যানজটের কারণে তিন ঘণ্টার পথ পারি দিতে সময় লাগতো ১০ থেকে ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত। উত্তরাঞ্চলের লাখ লাখ ঘরমুখো যাত্রীরা চরম দুর্ভোগে পড়তেন।

রাস্তা সংস্কার করায় গত রোজার ঈদেও বড় কোনো যানজট বা দুর্ঘটনা ঘটেনি। এবারও তেমন সমস্যা হওয়ার আশঙ্কা নেই। বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ শহীদ আলম বলেন, সকাল থেকে মহাসড়কের ঢাকা-উত্তরাঞ্চলগামী লেনে যানবাহনের চাপ বেড়েছে। সকাল ১০টার পর থেকে কিছুটা যানজট সৃষ্টি হয়। তবে তা অল্প সময়ের মধ্যে নিরসন করা হয়েছে।

হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি আব্দুল কাদের জিলানী বলেন, গোলচত্বর কেন্দ্রিক চারটি মহাসড়কে এখনও পর্যন্ত যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। কোথাও কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে ওয়াচ টাওয়ারের মাধ্যমে সেটা দেখে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

সিরাজগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আবু ইউসুফ বলেন, এবারও ঈদে ঘরে ফেরা কোনো মানুষ যাতে সমস্যায় না পড়েন সে বিষয়ে সতর্ক দৃষ্টি রয়েছে জেলা পুলিশের। জেলার ৯৯ কিলোমিটার মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কের নিরাপত্তায় ৮৯২ জন পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন। ৬০টি ফুট পেট্টোল টিম ও ৪০টি মোবাইল টিম পুরো জেলার সড়ক-মহাসড়কে কাজ করছে। এছাড়া ৩০টি চেকপোস্টের মাধ্যমে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *