সাপে কামড়ানোর পর করণীয়

আর্টিকেল: এই মৌসুমে আনাচে কানাচে সাপের দেখা মেলে। এ সময়টাতে সাপে কাটা রোগীও বেড়ে যায় অনেক। সাপে কাটার ফলে অনেক রোগীর মৃত্যুও ঘটে। তার মধ্যে বেশির ভাগ মৃত্যুই সাপে কামড়ানোর পরপরই রোগীর যত্নে গলদ থাকার জন্য।

শুধু গ্রাম বলেই নয়, শহরাঞ্চলেও মানুষের ভ্রান্ত ধারণা ও কু-সংস্কারের বশবর্তী হয়ে অনেক রোগীর মৃত্যু হয়। সাপে কামড়ালে অধিকাংশ মানুষেরই যে ভয় ও জ্বালায় হৃদস্পন্দন বন্ধ হয়ে মৃত্যু হয় এ কথা অনেকেই জানেন। কিন্তু অনেক কিছু জানার পরেও যে বিশেষ বিষয়গুলোয় আমরা ভুল করে থাকি, তাতেই ঘটে হিতে বিপরীত।

১. শরীরের যেখানে সাপ কামড়াবে, সেই জায়গাটিকে বেশি নাড়াচাড়া করবেন না। হাঁটা-চলা করানোর চেষ্টা তো একেবারেই নয়। বেশি নাড়াচাড়ার শরীরের পেশীতে টান পড়ে। রক্ত চলাচল বাড়ে। ফলে বিষ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে শরীরে।

২. অনেকেই সাপে কামড়ানোর ক্ষতের পাশে কিছুটা জায়গা চিরে বা কেটে দেন। ভাবেন, এতে ক্ষতে থাকা বিষ বেরিয়ে যাবে। একেবারেই ভুল ধারণা। বরং এমন করলে রক্তে আরও দ্রুত বিষ ছড়িয়ে পড়ার সুযোগ পায়। এতে মৃত্যু পর্যন্ত ঘটতে পারে।

৩. ব্যথা হবেই। কিন্তু ব্যথা কমানোর ওষুধ কখনও দেবেন না এ ক্ষেত্রে। এতে রোগীর প্রকৃত অবস্থা বোঝা যাবে না, চিকিৎসায় ব্যঘাত ঘটবে।

৪. স্ট্রেচারে শোওয়ানোর মতো করে সোজা করে রোগীকে শোওয়ান। কাত করে, বেশি হাত-পা নাড়িয়ে শোয়াবেন না। লক্ষ রাখতে হবে কোনোভাবেই যেন বিষ ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা না তৈরি হয়।

৫. সাপে কামড়ালে সবচেয়ে প্রয়োজন দ্রুত চিকিৎসার। কোনো রকম কু-সংস্কারের ফাঁদে পা না দিয়ে যত দ্রুত সম্ভব রোগীকে নিয়ে যান হাসপাতালে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *