‘খালেদা জিয়াকে বন্দি করা আওয়ামী লীগের সবচেয়ে বড় ভুল’

জাতীয় আর্টিকেল: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ‘বন্দি করে’ ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ গত ৯ বছরের মধ্যে ‘সবচেয়ে বড় ভুল’ করেছে বলে মনে করছেন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) চেয়ারম্যান ড. কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীরবিক্রম।

শনিবার সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচার স্বাধীনতা হলে ‘দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলন’ আয়োজিত ‘স্বাধীনতার ৪৭ বছর: গণতন্ত্রের সংকট’ শীর্ষক সেমিনারে বক্তৃতাকালে তিনি এ অভিমত ব্যক্ত করেন।

সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতা অলি আহমদ বলেন, ‘খালেদা জিয়া শুধু একজন ব্যক্তি নন, তিনি বাংলাদেশের সবচেয়ে জননন্দিত ব্যক্তি। গত ৯ বছরে আওয়ামী লীগ খালেদা জিয়াকে বন্দি করে সবচেয়ে বড় ভুল করেছে।

তার জন্য দেশের মানুষ নীরবে কাঁদছে। ৭৩ বছরের একজন মানুষকে, যিনি তিনবারের প্রধানমন্ত্রী, তাকে নির্জন কারাগারে রাম-সীতার বনবাসে পাঠিয়ে জনগণের হৃদয়ে আঘাত করেছে বর্তমান সরকার।’

তিনি বলেন, ‘সরকার জনগণের কাছে ধরা পড়ে গেছে। তারা খালেদা জিয়াকে বন্দি করে নির্বাচনের মাঠ থেকে প্রতিপক্ষকে সরিয়ে দিয়ে আবারও ক্ষমতা দখল করতে চায়— সেটা জনগণ বুঝে গেছে।’

এলডিপি চেয়ারম্যান বলেন, ‘জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টে এক টাকাও দুর্নীতি হয়নি। খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান কেউ এক টাকাও মেরে খাননি। পুরো টাকাই ব্যাংকে আছে। দুই কোটি টাকা এখন ছয় কোটি টাকা হয়েছে।’

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট নিয়ে কিছু ‘পদ্ধতিগত ভুল’ ছিল— দাবি করে তিনি বলেন, ‘অভিজ্ঞতার অভাব এবং না জানার কারণেই এ পদ্ধতিগত ভুল হয়েছে। পদ্ধতিগত ভুলের জন্য তিনবারের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের সাজা হতে পারে না। জনগণ এ সাজা মেনে নেয়নি।’

অলি আহমেদ বলেন, ‘দেশ দুর্নীতিতে ছেয়ে গেছে। ব্যাংক লুট হয়ে যাচ্ছে। বিদেশে হাজার হাজার কোটি টাকা পাচার হয়ে যাচ্ছে। শেয়ারবাজার লুট হয়ে গেছে। এ ব্যাপারে সরকার কিছুই করছে না। অথচ পদ্ধতিগত ভুলের জন্য দেশের সবচেয়ে জননন্দিত নেত্রীকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।’

আওয়ামী লীগ বারবার ‘গণতন্ত্র হত্যা করেছে’— এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘বিএনপি বাংলাদেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র, সংসদীয় গণতন্ত্র এনেছে এবং হারানো গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করেছে।’

কর্নেল অলি বলেন, ‘সরকারের ভুল সিদ্ধান্ত, প্রতিশোধপরায়ণতা ও প্রতিহিংসার কারণে খালেদা জিয়া ও বিএনপির জনপ্রিয়তা এখন আকাশচুম্বী। খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে, আইন লঙ্ঘন করে, সংবিধান না মেনে নির্জন-পরিত্যক্ত কারাগারে বন্দি করার কারণে সরকারের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।’

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি রকিবুল ইসলাম রিপনের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান আলোচক ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক এমাজউদ্দিন আহমদ, বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, এলডিপির যুগ্ম মহাসচিব গিয়াস উদ্দিন সেলিম, শিক্ষক কর্মচারী ঐক্য জোটের চেয়ারম্যান ও বিএনপির প্রাথমিক ও গণ শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক অধ্যক্ষ সেলিম ভুঁইয়া।

এছাড়াও ছিলেন, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ও বিএনপির তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সহ-সম্পাদক কাদের গনি চৌধুরী, বিএফইউজের সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা ফরিদ উদ্দিন আহমেদ, ছাত্র নেতা নাজমুল হাসান, সাইদুর রহমান তামান্না, মোশাররফ হোসেন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *