ট্রাম্পের সাথে পর্নস্টারের সম্পর্ক লুকাতে ঘুষ

আন্তর্জাতিক আর্টিকেল: যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের একজন আইনজীবী হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী পর্ন ছবির একজন তারকাকে ১.৩ লাখ ডলার দেয়ার কথা নিশ্চিত করেছেন।

দীর্ঘদিন ট্রাম্পের উকিল হিসেবে দায়িত্ব পালন করা এটর্নি মাইকেল কোহেন নিউ ইয়র্ক টাইমসকে বলেন, পর্নস্টার স্টর্মি ড্যানিয়েলসকে তিনি ২০১৬ সালের নির্বাচনের আগে নিজের পকেট থেকে ওই টাকা দিয়েছেন। স্টর্মি ড্যানিয়েলসের আসল নাম স্টেফানি কোলবার্ট।

গত মাসে দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল জানিয়েছিল ট্রাম্পের সাথে ড্যানিয়েলসের সম্পর্কের কথা গোপন রাখতে তাকে টাকা দেয়ার বন্দোবস্ত করেন কোহেন। এরপরই বিভিন্ন মাধ্যমে জোর আলোচনা শুরু হয়।

টাইমসকে কোহেন বলেন, ‘ট্রাম্প অর্গানাইজেশন বা তার প্রচারণা দল ওই লেনদেনের সাথে সম্পৃক্ত ছিল না। তারা আমাকে কোনভাবেই এই টাকা ফিরিয়েও দেয়নি।’ ‘এটা বৈধ পেমেন্ট ছিল এবং ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারণার তহবিল থেকে এটা দেয়া হয়নি।’

আগে ট্রাম্প ও ড্যানিয়েলস দুজনেই তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক থাকার কথা অস্বীকার করেছেন। কোহেনও কোনও টাকা দেয়ার অস্বীকার করেছিলেন।

জার্নালের রিপোর্টে বলা হয়, কোহেন শুধুমাত্র ড্যানিয়েলসকে টাকা দিতেই নাম পরিচয় ভাড়িয়ে একটি কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন, যেন টাকার লেনদেনের সাথে কারা জড়িত তা চিহ্নিত করা না যায়।

বৃহস্পতিবার কোহেন বলেন, তিনি নিজে ওই টাকা ড্যানিয়েলসকে দিয়েছেন বলে ফেডারেল ইলেকশন কমিশনকে অবহিত করেন। কমন কজ নামক একটি পর্যবেক্ষক সংস্থা ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারণার অংশ হিসেবে ওই পর্ন ছবির তারকাকে টাকা দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করলে ট্রাম্পের সাথে তার সম্পর্ক নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়।

ড্যানিয়েলস ২০১১ সালে ইন টাচ ম্যাগাজিনকে দেয়া সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন ২০০৬ সালে ট্রাম্পের সাথে সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। ওই সাক্ষাৎকার এতদিন গোপন রেখে খুব সম্প্রতি প্রকাশ করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *