জয়াসুরিয়াকে ছাড়িয়ে বিশ্ব রেকর্ড করতে দরকার মাত্র ৪২ রান

খেলাধুলা: দারুণ ফর্মে আছেন বাংলাদেশের ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবাল। চলতি ত্রিদেশীয় সিরিজে দুই ম্যাচেই খেলেছেন ৮৪ রানের ইনিংস। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৮৪ রানে অপরাজিত থাকলেও, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে একই স্কোর করে উইকেট হারিয়েছিলেন।

আউট হওয়ায় লঙ্কানদের বিপক্ষে ম্যাচটিতে তাদেরই ক্রিকেট গ্রেট সনাথ জয়াসুরিয়ার একটি কীর্তি ভাঙতে পারেননি তামিম। তা হলো, ওয়ানডেতে এক ভেন্যুতে সর্বোচ্চ রানের বিশ্ব রেকর্ড। মঙ্গলবার মিরপুরের শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়ের মুখোমুখি হবে টাইগাররা। সেই ম্যাচে মাত্র ৪২ রান করলেই জয়াসুরিয়াকে ছাড়িয়ে এই রেকর্ডের মালিক হয়ে যাবেন তামিম।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মাঠে নামার আগে জয়াসুরিয়ার রেকর্ড ভাঙার জন্য তামিমের প্রয়োজন ছিল ১২৬ রান। তবে ওই ম্যাচে ৮৪ রান করে আউট হন তামিম। ক্যারিয়ারের দশম সেঞ্চুরি হাতছাড়া হওয়া ছাড়াও রেকর্ড গড়তে না পারার আক্ষেপ হয়ত ছিল এই ২৮ বছর বয়সীর।

তবে দুটি কীর্তি ঠিকই গড়েছেন। প্রথম বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১১ হাজার রানের মাইলফলক ছুঁয়েছেন সে ম্যাচেই। আর ব্যক্তিগত ৭৬ রানের মাথায় পাকিস্তানের ইনজামাম-উল-হকের রেকর্ড কাটিয়ে কোন এক ভেন্যুতে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের তালিকায় বসেছেন জয়াসুরিয়ার ঠিক পিছে।

সাবেক পাকিস্তানি অধিনায়ক ইনজামাম শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ১৯৯৩ থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত খেলে ৫৯ ম্যাচে ৪ সেঞ্চুরি ও ১৭ ফিফটিতে ৫০.২৮ গড়ে ২৪৬৪ রান করেছিলেন। তার রেকর্ড কাটিয়ে শীর্ষে বসেন জয়াসুরিয়া। তিনি কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে ৭১ ম্যাচের ৭০ ইনিংসে ৩৮.৬৭ গড়ে ২৫১৪ রান করেন। সেখানে এই সাবেক লঙ্কান মারকুটে ওপেনার করেছিলেন ৪ সেঞ্চুরি ও ১৯ ফিফটি।

আর ২০০৭ সাল থেকে এখন পর্যন্ত শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ৭৩ ম্যাচের ৭২ ইনিংসে ৩৫.৩২ গড়ে ২৪৭৩ রান করেছেন তামিম। এই মাঠে ৫ সেঞ্চুরির সাথে তার রয়েছে ১৫ ফিফটি। ইনজিকে তো পেছনে ফেলেছেন, আর ৪২ রান করে জয়াসুরিয়াকেও কাটিয়ে যাবেন। টাইগার সমর্থকরা নিশ্চয়ই চাইবেন তামিম মঙ্গলবারই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে রেকর্ডটা করে ফেলুন। কারন, তামিম ভালো খেললে যে জিতে যায় দেশ!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *