শরণার্থীদের দেওয়া সাহায্য আটকে দিলো যুক্তরাষ্ট্র

আন্তর্জাতিক: ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের দেওয়া অর্থ সাহায্য থেকে সাড়ে ১২ কোটি ডলার আটকে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ফিলিস্তিনিদের অর্থ সহায়তা বন্ধ করার হুঁশিয়ারি দেওয়ার এক সপ্তাহ হতে না হতেই এ খবর বের হলো।

ইরানি গণমাধ্যম প্রেস টিভি জানিয়েছে, নাম উল্লেখ না করে তিন পশ্চিমা কূটনীতিকের বরাত দিয়ে অ্যাক্সিওস নিউজ ওয়েবসাইটের খবরে শুক্রবার বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র বছরে তিন দফায় ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের জন্য জাতিসংঘের রিলিফ অ্যান্ড ওয়ার্কস এজেন্সিকে (ইউএনআরডব্লিউএ) যে সহায়তা দেয় তার তৃতীয় দফা আটকে দেওয়া হয়েছে। ফিলিস্তিনকে দেওয়া মার্কিন সাহায্যের বিষয়ে হোয়াইট হাউজ পুনর্বিবেচনা না করা পর্যন্ত এ অর্থ ছাড় দেওয়া হবে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার ট্রাম্প টুইটারে ফিলিস্তিনিদের দেওয়া সাহায্য বন্ধের হুঁশিয়ারি দেন। গত ৬ ডিসেম্বর ট্রাম্প জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা এবং তেলআবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমে স্থানান্তরের ঘোষণা দেন। এর পর মধ্যপ্রাচ্যে (ইসরাইল-ফিলিস্তিন) শান্তি প্রতিষ্ঠার তথাকথিত প্রস্তাব আনেন ট্রাম্প। ফিলিস্তিন ওই প্রস্তাব অনুযায়ী আলোচনায় রাজি না হওয়ায় সাহায্য বন্ধের হুমকি দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

তবে বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে, বিষয়টি নিয়ে মার্কিন কর্মকর্তারা এখনও মুখ খোলেননি। বরং তারা এ ধরনের খবরকে গুজব বলে মন্তব্য করেছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক কর্মকর্তা রয়টার্সকে বলেন, ‘টাকাটা তারা সময় অনুযায়ী পায়নি, তার মানে এই নয় যে, অর্থ সাহায্য স্থগিত করা হয়েছে।’

অন্যদিকে, ইউএনআরডব্লিউএ’র মুখপাত্র ক্রিস গুন্নেস বলেছেন, ‘মার্কিন প্রশাসনের পক্ষ থেকে সাহায্য বন্ধের কথা আনুষ্ঠানিকভাবে আমাদের জানানো হয়নি।’

প্রসঙ্গত, যুক্তরাষ্ট্র বর্তমানে ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের জন্য বছরে ৩০ কোটি ডলারের বেশি সাহায্য দিয়ে থাকে। কিন্তু জেরুজালেম নিয়ে ট্রাম্পের ওই ঘোষণার পর থেকে ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কের টানাপোড়েন চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *