রোহিঙ্গা থেকেও খারাপ হয়ে গেছি

জাতীয়: বকেয়া বেতন ও মজুরি আদায়ের লক্ষ্যে খুলনাঞ্চলের রাষ্ট্রয়াত্ত ৮টি পাটকলে শ্রমিকদের কর্মবিরতি চলছে। প্রতিদিন খালিশপুর শিল্পাঞ্চলে চলছে শ্রমিকদের মিছিল ও সমাবেশ। শ্রমিকদের দাবি ১১ দফা বাস্তবায়ন না হলে রাজপথে তারা আন্দোলন চালানোর ঘোষণা দিয়েছেন।

 

গত দেড় যুগেরও বেশি সময় এরকম আন্দোলন করছে পাটকল শ্রমিকরা। বর্তমানে ৮ থেকে ১০ সপ্তাহের বকেয়া বেতন ও মজুরি আদায়ের জন্য খুলনার প্লাটিনাম, ক্রিসেন্ট ও স্টারসহ ৮টি রাষ্ট্রয়াত্ত পাটকলের হাজার হাজার শ্রমিক প্রতিদিন মিছিল ও সমাবেশ করছেন। শ্রমিকরা বলছেন, প্রাপ্য টাকা না পাওয়ায় সংসার চলাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাদের।

একজন শ্রমিক বলেন, ১৮০০ টাকা বিল, তার থেকেও ১০টা বিল নেই। এই বিল না দেয়া পর্যন্ত না খেয়ে মরতে হচ্ছে। রোহিঙ্গা থেকেও খারাপ হয়ে গেছি।
আরো একজন শ্রমিক বলেন, ছেলেমেয়ের বই কিনতে হবে এখন পর্যন্ত টাকা পয়সা নাই, কিভাবে কি করবো জানি না।

শ্রমিক নেতাদের দাবি, চলতি বছর খুলনাঞ্চলের পাটকল থেকে কোটি কোটি টাকার পাটজাত পণ্য বিদেশে রপ্তানি করা হলেও অজ্ঞাত কারণে শ্রমিকদের পাওনা টাকা দিচ্ছেনা মিল কর্তৃপক্ষ।

বিজেএমসি’র আঞ্চলিক কর্মকর্তা অবশ্য দ্রুত সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিলেন।

বাংলাদেশ জুট মিল কর্পোরেশন মহাব্যবস্থাপক গাজী শাহাদাত হোসেন বলেন, সুদানে বেশ কিছু টাকার মাল বিক্রি করেছি, ওটার টাকা পেলে শ্রমিকদের এই বকেয়া মজুরি আর থাকবে না, আশা করছি আট-দশ দিনের মধ্যে বকেয়া দিয়ে দিতে পারবো।

খুলনাঞ্চলের রাষ্ট্রয়াত্ত  ৮টি পাটকলে স্থায়ী ও অস্থায়ী ভিত্তিতে শ্রমিক সংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *